সারাদেশ

রবিবার হরতাল

বাসন্তী চাকমার ইস্যুতে আবারো উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে পার্বত্য জনপদ খাগড়াছড়ি। সংসদে বিতর্কিত মন্তব্য করার প্রায় ৪মাস পর গতকাল বাসন্তী চাকমা খাগড়াছড়িতে প্রবেশ করলে এ প্রতিক্রিয়া শুরু হয়।

এদিকে শুক্রবার (৭ জুন) খাগড়াছড়িতে বিক্ষোভ মিছিল ও অবস্থান কর্মসূচী পালনের মধ্য দিয়ে বাসন্তী চাকমাকে শুক্রবারই দ্রুত খাগড়াছড়ি ত্যাগ করতে আল্টিমেটাম দিয়েছে পার্বত্য অধিকার ফোরাম। আর তা না হলে আগামী রবিবার (৯ জুন) সকাল-সন্ধ্যা সড়ক অবরোধের ডাক দেওয়া হয়েছে সংগঠনটির পক্ষ থেকে।

শুক্রবার (৭ জুন) সকাল ১১টায় চেঙ্গী এস্কায়ার থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি শহরের শাপলা চত্বর-আদালত সড়ক হয়ে মহাজনপাড়া বাসন্তি চাকমার বাড়ির প্রবেশমূখে এসে অবস্থান নেয়।

অবস্থান কর্মসূচী পালনকালে সড়কের প্রায় ৬ ঘন্টা দুপাশের যানচলাচল বন্ধ হয়ে যায়। বিক্ষোভ সমাবেশে বাসন্তি চাকমার কথা তুলে ধরে পাহাড়কে অস্থিতিশীল করে তুলতে তার ইন্ধনসহ নানা অপকৌশল, সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সৃষ্টির ষড়যন্ত্রের জন্য তার দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবী করেন বিক্ষুব্ধরা।

বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ কালে পার্বত্য চট্টগ্রামের মহিলা সংরক্ষিত আসনে এমপি পদ বাতিল ও দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবী করে বাসন্তির শুভেচ্ছা ব্যানার ছিড়ে ঝাড়ু, জুতা পেটা করা হয়। এ সময় সংগঠনটির ৪ দফা দাবীসহ কর্মসূচী ঘোষনা দেয় পার্বত্য অধিকার ফোরামের কেন্দ্রীয় সভাপতি মাঈন উদ্দিন।

এতে পার্বত্য অধিকার ফোরামের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক এস এম মাসুম রানা, কেন্দ্রীয় অর্থ সম্পাদক রবিউল হোসেন, দপ্তর সম্পাদক পারভেজ আহম্মদ, কেন্দ্রীয় কমন্বয়ক সাহাবুদ্দীন, সাদ্দাম হোসেন, খাগড়াছড়ি জেলা আহবায়ক এসএম হেলাল, যুগ্ম আহবায়ক মোক্তাদির হোসেন, বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম ছাত্র পরিষদ খাগড়াছড়ি শাখার যুগ্ম সম্পাদক ইব্রাহীম খলিলসহ অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা সময় উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত: ২৬শে ফেব্রুয়ারী মহান জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশনের বক্তব্যে পার্বত্য চট্টগ্রামের বসবাসরত বাঙ্গালী ও সেনাবাহিনীকে নিয়ে উগ্র সাম্প্রদায়িক বক্তব্যের ফলে উত্তপ্ত পরিস্থিতি বিরাজ করছে পাহাড়ে।